North Bengal

নির্বাচনী প্রচারে বিক্ষোভের মুখে বিজেপি প্রার্থী শ্রীরূপা সহ কর্মী সমর্থকেরা।

আসন্ন লোকসভা নির্বাচনী প্রচারে গিয়ে বিক্ষোভের মুখে পড়লেন দক্ষিণ মালদার বিজেপি প্রার্থী শ্রীরূপা মিত্র চৌধুরী সহ কর্মী-সমর্থকেরা।মঙ্গলবার দুপুরে ঘটনাকে কেন্দ্র করে তুমুল উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে মালদা ইংরেজবাজার ব্লকের কাজিগ্রাম গ্রাম পঞ্চায়েতের খোয়ারমোড় এলাকায় । বিজেপি প্রার্থীর সামনে এলাকায় শান্তি বিঘ্নিত করার অভিযোগ তুলে সোচ্চার হোন গ্রামবাসীদের একাংশ।
বিক্ষোভকারী গ্রামবাসীদের বক্তব্য, বহিরাগত প্রার্থীকে আমরা মেনে নিতে পারছি না । উনি দিল্লি থেকে ভোট চাইতে গ্রামে এসেছেন। ভোট পেরলেই আর দেখা মিলবে না । এরকম পার্থীকে আমাদের গ্রামে প্রবেশ করতে দিব না । আর এই নিয়ে ক্ষোভ শুরু হয় বিজেপি প্রার্থীর সামনে। যদিও দলীয় কর্মীরা পরিস্থিতি সামলে ওঠার চেষ্টা চালান। বিক্ষোভকারীদের বোঝানোর চেষ্টা করেন। কিন্তু বিজেপি কর্মীদের কোন কথাতেই ডাল গলে নি। বাধ্য হয়ে ফিরে আসতে হয় বিজেপি প্রার্থীকে। এই দিনের ঘটনায় গ্রামবাসীর কাছে আক্রান্ত হন মহিলা বিজেপি নেত্রী সুতপা মুখার্জি বলে অভিযোগ।এদিকে বিজেপি প্রার্থী শ্রীরূপা মিত্র চৌধুরীর অভিযোগ, গ্রামবাসীরা নয়, এক থেকে দুইজন তৃণমূল কর্মী আমাকে গ্রামে ঢুকতে এবং নির্বাচনী প্রচারে বাধা দিয়েছে । স্থানীয় তৃণমূল নেতৃত্ব পরিকল্পনা করেই এই কাজ করেছে । তাই পুরো বিষয়টি নিয়ে ইংরেজবাজার থানায় লিখিত অভিযোগ জানিয়েছে। এদিকে স্থানীয় ও পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, মঙ্গলবার সকালে খোয়ারমোড় এলাকায় নির্বাচনী প্রচারে যান দক্ষিণ মালদার বিজেপি প্রার্থী শ্রীরূপা মিত্র চৌধুরী। গাড়িতেই তিনি বসেছিলেন। এরই মধ্যে প্রার্থীর সামনেই স্থানীয় গ্রামবাসীরা এসে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন । তাদের বক্তব্য, শান্তিপূর্ণ এলাকায় সম্প্রীতি নষ্ট করার চেষ্টা চালাচ্ছে বিজেপি । তাদের গ্রামের প্রয়োজন নেই। বিগত দিনে এই এলাকার মানুষের সমস্যার সমাধান করেছেন মমতা ব্যানার্জির সরকার। কন্যাশ্রী, রুপশ্রী , যুবশ্রী, সবুজসাথী, সমব্যথী সহ বিভিন্ন সরকারি প্রকল্পের অন্তর্ভুক্ত হয়েছেন গ্রামবাসীরা। যিনি গ্রামের মানুষদের দেখেছেন, আমরা তাকেই দেখব । বহিরাগত কাউকে এসে এলাকায় বিভ্রান্তিকর প্রচার করতে দিব না। এই দাবি নিয়ে এদিন ওই বিজেপি প্রার্থী গ্রামে প্রচার করতে দেওয়া হয় নি । তার সামনে বিক্ষোভ দেখানো হয়েছে। ঘটনার পর মহিলা বিজেপি নেত্রী সুতপা মুখার্জি সংবাদমাধ্যমকে জানান এই নিয়ে দুই বার তৃণমূল কর্মীদের হাতে আক্রান্ত হয়েছেন। প্রশাসনের কাছে তিনি সুবিচার চেয়েছেন।
বিক্ষোভকারীদের বক্তব্য, তারা কোনো দলের নয়। নিরপেক্ষ গ্রামবাসী হিসাবে এই কথাগুলো তুলে ধরেছেন । আর তারপরই বিজেপির একাংশ কর্মীরা মারমুখী হয়ে ওঠে বলে অভিযোগ।
এদিকে পুরো বিষয়টি নিয়ে তৃণমূলের ষড়যন্ত্রের যে কথা বলা হয়েছে তা ভিত্তিহীন বলে দাবি করেছেন দক্ষিণ মালদার প্রার্থী তথা দলের জেলা সভাপতি মোয়াজ্জেম হোসেন। তিনি বলেন, আসলে বিজেপির কোন ইস্যু কাজ করছে না। গ্রামে গ্রামে মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জীর উন্নয়নের জোয়ারে ভরে গিয়েছে । গ্রামীণ এলাকার মানুষের সমস্যার সমাধান দলনেত্রী করেছেন । তাই মানুষ এখন বিজেপির ভাঁওতাবাজিতে কান দিতে চাইছে না। এলাকায় শান্তি বিঘ্নিত হতে পারে এই আশঙ্কা করেই প্রচারে বাধা দিয়েছেন গ্রামবাসীরা। আর বিজেপি কোন পথ না পেয়ে তৃণমূলের বিরুদ্ধে মিথ্যা কথা বলছে।
বিজেপি প্রার্থী শ্রীরূপা মিত্র চৌধুরী বলেন, পুরো ঘটনার পিছনে তৃণমূলের মদত রয়েছে। এই ঘটনার সম্পর্কে ইংরেজবাজার থানায় নালিশ জানানো হয়েছে । যদিও এব্যাপারে সংশ্লিষ্ট থানার পক্ষ থেকে কোনো প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায় নি।

News: হক জাফর ইমাম।

Share this:

You may also like