North Bengal

রাসায়নিক আবির নয়, জৈব আবিরের দিকেই ঝুঁকছে ক্রেতারা।

রাসায়নিক আবির নয়, এবার জৈব আবিরের দিকে ঝুঁকছে ক্রেতারা৷ সেই চাহিদার কথা মাথায় রেখে প্রস্তুতকারকরাও এখন জৈব আবির তৈরি করছেন৷ সেকথাই জানালেন পুরাতন মালদার সাহাপুর এলাকার এক আবির ব্যবসায়ী বিমল পাল৷

সাহাপুর এলাকায় বিমলবাবু একজন মৃৎশিল্পী৷ কিন্তু প্রতিমা নির্মাণের পাশাপাশি তিনি দোল উৎসবের সময় আবির প্রস্তুত করে থাকেন৷ বছর ত্রিশ ধরে এই কাজ করছেন তিনি৷ কাজ শিখেছিলেন বাবার কাছে৷ বিমলবাবু বলেন, সারা বছর প্রতিমার কাজ করলেও সরস্বতী পুজোর পর তিনি আবির তৈরির কাজ করে থাকেন৷ তাঁর মৃৎশিল্পের কারখানায় ৭-৮ জন কর্মচারী কাজ করেন৷ প্রতিমা নির্মাণের চাপ না থাকলে তাঁর সঙ্গে কর্মচারীদেরও সংসার চালাতে কিছুটা সমস্যা হয়৷

এসব কথা মাথায় রেখেই তিনি আবির তৈরির কাজ চালিয়ে যান৷ গত ১৬-১৭ দিন ধরে আবির তৈরির কাজ চলছে৷ এখন মানুষ জৈব আবির খুঁজছে৷ চাহিদার কথা মাথায় রেখে তিনিও সেই আবির তৈরি করছেন৷ তবে রাসায়নিক আবিরও রয়েছে৷ তাঁর কাছে মোট ৬টি রং-এর আবির রয়েছে৷ দাম কিলোপ্রতি ৩৫০ টাকা থেকে শুরু করে ১০০ টাকা পর্যন্ত৷ এখন পর্যন্ত কিছু বরাত পেয়েছেন৷ বরাত অনুযায়ী আবির সরবরাহ করাও শুরু করে দিয়েছেন তিনি৷
মাঝে আর কয়েকটা দিন৷ তারপরেই রং-এর উৎসবে মেতে উঠবে গোটা দেশ৷ উৎসবে শামিল হবে মালদাও৷ তারই প্রস্তুতি এখন চলছে জোরকদমে৷

News: হক জাফর ইমাম।

Share this:

You may also like