North Bengal

রাজ্য সরকারের উদ্যোগে সাগর দিঘী এলাকায় ওয়াচ টাওয়ারের কাজের শুভ সূচনা।

রাজ্য সরকারের উদ্যোগে সাগর দিঘী সরকারি মৎস্য প্রজনন কেন্দ্রে চারটি ওয়াচ টাওয়ারের কাজের শুভ সূচনা করা হয়।পর্যটকদের আকর্ষণ বাড়ানোর জন্য রোপওয়ে চালু করার পরিকল্পনা উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে। এছাড়াও সাগরদিঘিতে যাতে পর্যটকেরা বিনোদন ক্ষেত্র হিসেবে ব্যবহার করতে পারেন । তার জন্য ঢেলে সাজানোর কাজ শুরু হয়েছে । শুক্রবার দুপুরে সাগর দিঘী এলাকায় ওয়াচ টাওয়ারের কাজের শুভ সূচনা করেন ইংরেজবাজারের বিধায়ক নিহার ঘোষ । উপস্থিত ছিলেন ইংরেজবাজার পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি লিপিকা ঘোষ, কাজিগ্রাম গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান ও তৃণমূল দলের সদস্যরা।ইতিমধ্যে রাজ্য সরকারের উদ্যোগে সাগরদিঘী মৎস্য প্রজনন কেন্দ্রটিকে ইকো ট্যুরিজম পার্ক হিসেবে গড়ে তোলার কাজ শুরু করা হয়েছে। এই সাগরদিঘীটি দেশের মধ্যে সর্ববৃহৎ জলাশয় কেন্দ্র হিসেবে উল্লেখ রয়েছে । এক হাজার হেক্টর জমি জুড়ে রয়েছে একটি বড় জলাশয় । তার সঙ্গে রয়েছে ২০ টি আরো ছোট – বড় জলাশয়। যেখানে মাছের চারা চাষ এবং মাছের প্রজনন ঘটানো হয়ে থাকে । এই সাগরদিঘী তাই বিভিন্ন প্রজাতির বিপুল পরিমাণে মাছ চাষ করা হয়। এই এলাকাটিকে ইকো ট্যুরিজম পার্ক হিসাবে গড়ে তোলার কাজ শুরু হয়েছে। ইতিমধ্যে সেখানে পর্যটকদের বসার জায়গার ব্যবস্থা করা হয়েছে। বসানো হয়েছে হাইমাস টাওয়ার। যদিও এখনো অনেক কাজ বাকি রয়েছে বলে প্রশাসন সূত্রে জানা গিয়েছে।বিধায়ক নীহাররঞ্জন ঘোষ বলেন,সাগরদিঘী মৎস্য প্রজনন কেন্দ্রটি হচ্ছে পর্যটকদের আকর্ষণ কেন্দ্র। বিভিন্ন প্রজাতির বিদেশি পাখিও এখানে সব সময় দেখা যায় । তার সঙ্গে মাছের চারা উৎপাদনের ব্যবস্থাও পর্যটকদের ঘুরে দেখার জন্য রয়েছে। সাগর দিঘিতে এখন প্রায় ৩৩ লক্ষ টাকা ব্যয়ে চারটি ওয়াচ টাওয়ার বসানোর উদ্যোগ নিয়েছে রাজ্য সরকার । এই ওয়াচ টাওয়ারে উঠে পর্যটকেরা সম্পূর্ণ ভাবে সাগরদিঘী চিত্রটা বুঝতে পারবেন । এর সঙ্গে এখানে রোপওয়ে চালু করার পরিকল্পনার কথা ভাবা হচ্ছে।বিধায়ক আরও বলেন, মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি চেয়েছেন সাগরদিঘীকে পর্যটকদের আকর্ষণের কেন্দ্রবিন্দু যাতে করা যায়। অনেকে শীতের মরশুমে এখানে আসেন পিকনিক করতে। বছরের যেকোনো সময় পর্যটকেরা এসে যাতে এখানে সময় কাটাতে পারেন । তার জন্য নানা ধরনের পরিকাঠামোর কাজ চলছে। পাশাপাশি সাগরদিঘিতে নতুন করে গেস্টহাউস গড়ে তোলা হচ্ছে । এই এলাকায় আসতে যেসব রাস্তা গুলি রয়েছে। সেটিও রাজ্য সরকারের আর্থিক সহযোগিতায় সংস্কার করার কাজ খুব শীঘ্রই করা হবে।

News: হক জাফর ইমাম।

Share this:

You may also like