North Bengal

পাকা রাস্তার দাবিতে ভোট বয়কটের আওয়াজ গ্রাম বাসিদের।

গ্রামের পাকা রাস্তার দাবি দীর্ঘ দিন ধরে পুরন না হওয়ায় লোকসভা ভোটে ভোট বয়কটের ডাক দিলো মালদা পঞ্চানন্দপুরে। গ্রামের বাসিন্দারা। সপ্তাহ খানেক আগে তাদের দাবি লিখিত ভাবে জানিয়ে ছিলেন বিডিও কে। তাতেও কাজ না হওয়ায় এবার পথে নামলো কালিয়াচক দুই নং ব্লকের পঞ্চানন্দপুর দুই গ্রাম পঞ্চায়েতের বাবু টোলা জয়রামটোলা ও যুগলতলা গ্রামের বাসিন্দারা। এই রাস্তার দাবিতে চরম ক্ষোভ সঞ্চারিত হয়েছে গ্রাম বাসিদের মধ্যে গত সোম বার গ্রামবাসীরা লিখিত ভাবে এই রাস্তা পাকা করার দাবিতে স্হানীয় বিডিও ও প্রধানকে জানিয়েছেন । আজ গ্রাম বাসীরা পথের দাবিতে পথে নামে । ভাঙা রাস্তার উপর বসে ভোটের আগেই এই রাস্তার দাবি করতে থাকে। রিতিমত প্লেকার্ড সাইনবোর্ড লেখে রাস্তার দাবি করতে থাকে । গ্রামের মানুষের দাবি পঞ্চানন্দপুরের ভগতটোলা বাঁধ থেকে রাজারামটোলা বাবু টোলা হয়ে যুগলতলা হাইস্কুল প্রর্যন্ত প্রায় ২ কিমি রাস্তা খুব খারাপ। এই রাস্তা দিয়ে স্হানীয় স্হানীয় রাজারামটোলা, বাবুটোলা, যুগলতলা, বিহারীলাল, পিয়ারিটোলা আট নং চর এলাকার হাজার হাজার মানুষ যাতায়াত করে। বর্ষা এলে এই গ্রামের মেয়েরা স্কুলে যেতে পারে না ফলে গ্রামের মানুষের ক্ষোভ বাড়ছে দিন দিন । গ্রাম বাসীরা বার বার পঞ্চায়েত ও নেতা মাথা দের জানায় । ভোটের সময় সব দল প্রতিশ্রুতি দেয়, কিন্তু ভোট চলে গেলে ই সবাই ভূলে যায়। ফলে এ বছর বর্ষা আসার আগে আর একটি নির্বাচন চলে আসায় সাধারন মানুষের মধ্যে ক্ষোভ বাড়ছে দিন দিন।

পঞ্চানন্দপুরের বাবুটোলা গ্রামের বাসিন্দা বাদিরুদ্দিন আহমেদ, জাহাঙ্গীর আলম, রাজারামটোলা র অখিল মন্ডল, সুজিত মন্ডল জানান” *আমাদের এই রাস্তা একটি মূল্যবান রাস্তা। এই রাস্তা দিয়ে হাজার হাজার মানুষ যাতায়াত করে। বর্ষা এলে আমাদের আতঙ্ক বাড়ে, আমাদের গ্রামর মেয়ে রা বিদ্যালয়ে যেতে পারে না। গ্রামে র মানুষ অসুস্থ হলে তাকে খাটে করে হসপিটালে নিয়ে যেতে হয়। আমরা বার বার বলি। ভোট আসে ভোট যায়। কিন্তু প্রতিশ্রুতি ই ছাড়। তাই আমরা আবার সিদ্ধান্ত নিয়েছি এবছর ভোটের আগে রাস্তা না হলে আমরা গ্রামের সবাই ভোট বয়কট করবো। বিষয়টি নিয়ে পঞ্চানন্দপুর দুই গ্রাম পঞ্চায়েতে প্রধান অঞ্জনা সরকার মন্ডল জানিয়েছেন, “আমি নতুন প্রধান হয়েছি। গ্রাম বাসীরা আমার কাছে এসেছিলেন। রাস্তা টি জেলা পরিষদ বা পঞ্চায়েত সমিতির স্কিমের আওতায় আনা উচিত। পঞ্চায়েতে পক্ষে সম্ভব নয়। তবু আমি বলেছি বছর বছর বছর একটু একটু করে ওই রাস্তা টি ঢালাই করে দেওয়ার চেষ্টা করবো।”
স্হানীয় বিডিও সঞ্জয় ঘিষিং জানান, গ্রামের বাসিন্দাদের দাবি খাতিয়ে দেখে বিষয়টি দেখা হয়েছে। আমি প্রধান কে বলেছি ওই রাস্তা যেন তারাতারি হয়। আমরা পঞ্চায়েত সমিতি থেকে খুবই তারাতারি টেন্ডার করে রাস্তার কাজে হাত দেব। যে টুকু বাকি আছে তা পঞ্চায়েত প্রধান কে করার জন্য বলেছি। আশা করবো ভোটের আগেই সমস্যা সমাধান হয়ে যাবে।

News: হক জাফর ইমাম।

Share this:

You may also like